প্রচ্ছদ

সিলেটসহ সারাদেশে আজ মহাষ্টমীতে চলছে কুমারী পূজা

০৬ অক্টোবর ২০১৯, ১৩:৪১

Sundaysylhet.com

এই উপলক্ষে রোববার সকাল থেকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অনুষ্ঠিত হচ্ছে কুমারী পূজা। প্রতিবছরের মতো এবারও মহাষ্টমীতে রামকৃষ্ণ মিশনে অনুষ্ঠিত হচ্ছে কুমারী পূজা।

রামকৃষ্ণ মিশনে অষ্টমী পূজা শুরু হয় সকাল সাড়ে ৯ টায়। ইতোমধ্যে রামকৃষ্ণ মিশনে ভক্ত অনুসারীদের ঢল নেমেছে। ঢাকার বাইরেও বিভিন্ন জেলার মানুষের সরব উপস্থিতি দেখা যাচ্ছে।

স্বামী বিবেকানন্দ নারীদের মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় ১৯০১ সালে শ্রীরামকৃষ্ণ ও সারদাদেবীর অনুমতিক্রমে কুমারী পূজার প্রচলন করেন।

কুমারী পূজা বিশেষ ধরনের পূজা। এই পূজায় কুমারী মেয়েকে দেবীর আসনে বসিয়ে মাতৃরূপে পূজা-অর্চনা করা হয়। শঙ্খের ধ্বনি, কাঁসর ঘণ্টা, ঢাকের বাদ্য ও উলুধ্বনি দিয়ে কুমারীকে ফুলের মালা পরানো হয়। দেবী দুর্গার আরেক নাম ‘কুমারী’। মূলত নারীকে যথাযথ মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত করতে কুমারী পূজার আয়োজন করা হয়।

ঢাকার রামকৃষ্ণ মিশনের প্রধান মহারাজ এ পূজা প্রসঙ্গে বলেন, দুর্গাপূজায় কুমারী পূজা সংযুক্ত হয়েছে তান্ত্রিক সাধনামতে। শ্বেতাশ্বতর উপনিষদেও কুমারীর কথা উল্লেখ আছে। এ থেকে অনুমান করা যায়, দেবীর কুমারী নাম অনেক পুরোনো। এই নাম যেমন পুরোনো, তার আরাধনা ও পূজার রীতিনীতিও তেমনি প্রাচীন।

দেবীজ্ঞানে যে কোনও কুমারীই পূজনীয় তবে সাধারণত ব্রাহ্মণ কুমারী কন্যার পূজা সর্বত্র প্রচলিত। ব্রাহ্মণ ছাড়াও অন্য জাতির কন্যাকেও কুমারীরূপে পূজা করতে বাধা নেই। কিন্তু অবশ্যই কুমারীকে ঋতুমতী হওয়া চলবে না। তন্ত্রঅনুসারে এক থেকে ষোল বছর পর্যন্ত ব্রাহ্মণ বালিকাদের কুমারী পূজার জন্য নির্বাচিত করা হয়ে থাকে।

এবারে কুমারী পূজায় সাড়ে চার বছরের প্রশংসা বন্দ্যোপাধ্যায়কে স্নান করিয়ে নতুন কাপড় পরানো হয়েছে। ফুলের মালা, চন্দন, নানা অলংকার, প্রসাধন ও উপাচারে নিপুণ সাজে সাজানো হয়েছে। পূজা মণ্ডপের নির্দিষ্ট আসনে বসিয়ে চলছে পূজার নানা আয়োজন।

 

এবার কুমারী রূপে পূজিত হয়েছেন হবিগঞ্জ শহরের পুরানমুন্সেফী এলাকার বাসিন্দা সৌমেন্দ্র নাথ মল্লিকের সাত বছর বয়সী মেয়ে সোমা মল্লিক।

কুমারী শাস্ত্রীয় মতে, তার নাম রাখা হয় কুঞ্জিকা। সে রামচরণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী। তার বাড়ি যশোর জেলায়। বাবার চাকরির সুবাদে তারা হবিগঞ্জে বসবাস করছেন।

পূজা পরিদর্শন করেন সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহির, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা, সাবেক পৌর মেয়র জি কে গউছ।

পূজা উপভোগ করতে আশেপাশের জেলা থেকেও হাজারও পূজারী হবিগঞ্জে এসেছেন। এছাড়াও বাহুবল উপজেলার মিরপুরেও কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে।



সংবাদটি 27 বার পঠিত :::: সংবাদটি ভাল লাগলে লাইক বাটনে ক্লিক করুন
0Shares
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ