ভয়ংকর ২২ দিন

প্রকাশিত: ৬:৫৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৫

cb04d254e52cd143b825ed1f7609d428-4২২ দিন পর খুলে দেওয়া হয়েছে ফেসবুক। জনৈক তরুণের ডায়েরি থেকে পড়ুন ভয়ংকর সেই ২২ দিনের রোমহর্ষক বর্ণনা।
.দিন ১: হা হা…ভালোই হইছে, ফেসবুক বন্ধ করে দিছে! এবার সেমিস্টার ফাইনালে ফাটায় দেব।
দিন ২: আজকে ফেসবুক বন্ধের দ্বিতীয় দিন। ফেসবুক বন্ধ নিয়ে পোলাপান হাউকাউ করছে। আমার অবশ্য ভালোই লাগছে, যদিও পড়াশোনা কিছুই হচ্ছে না।
দিন ৩: ব্যাপার কী, আজকেও ফেসবুকে ঢুকতে পারছি না কেন! কত দিনের জন্য বন্ধ করে দিল?
দিন ৪: হলি কাউ। অনেকক্ষণ থেকে চেষ্টা করেও ফেসবুকে ঢুকতে পারছি না। এইডা কিছু হইল? কী শুরু হইল এটা!
দিন ৫: সত্যি সত্যি ফেসবুক বন্ধ, এটা মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে। ফেসবুকে কত কাজ বাকি ছিল!
দিন ৬: পড়াশোনা হচ্ছে না। অ্যাঞ্জেল তিথি মেয়েটার সঙ্গে সবে হাই-হ্যালো শুরু হয়েছিল। তারপর ফেসবুকটা বন্ধ হয়ে গেল। আমার একটা প্রেম হোক, এটা মনে হয় সরকারও চায় না!
দিন ৭: ফেসবুক বন্ধ! ফেসবুক বন্ধ! ফেসবুক বন্ধ! ধুর, ভালো লাগে না!
দিন ৮: সাত দিন পার হয়ে গেল, এতক্ষণে মনে হয় খুলে দিয়েছে—এই ভেবে আজকেও কয়েকবার চেষ্টা করলাম, কিন্তু না, খোলে নাই। হায় তিথি, আপনি কেমন আছেন?
দিন ৯: পরীক্ষার হলে আজ একটা মন খারাপ করা ঘটনা ঘটেছে। স্যার আমার খাতা নিয়ে এক ঘণ্টা রেখে দিয়েছিলেন। এই ঘটনা ফেসবুকে শেয়ার করলে বন্ধুরা আমাকে সমবেদনা জানাত, কিছুটা হলেও সান্ত্বনা পেতাম। মনে হয় তিথিও ইনবক্সে সমবেদনা জানাত।

দিন ১০: গ্রুপ স্টাডি করতে পারছি না। গতকাল বাতেন স্যার নাকি শর্ট সাজেশন দিয়েছিলেন, বন্ধুরা অনেকে পেয়েছে। ফেসবুক না থাকায় আমি পাইনি। হায় সাজেশন! হায় ফেসবুক! কবে খুলবে!
দিন ১১: প্লিজ, ফেসবুক খুলে দিন। আর পারছি না।
দিন ১২: নাহ্, আর ফেসবুক ফেসবুক করব না। ধুর, কী আছে ফেসবুকে! কিছুই নাই। শুধু শুধু সময় নষ্ট, ভালোই হইছে!
দিন ১৩: তিথি, আপনি কেমন আছেন? আপনার সময় কীভাবে কাটছে?
দিন ১৪: দুই সপ্তাহ হয়ে গেল, তবু ফেসবুক খুলে দিল না! এটা কোনো কথা হতে পারে না।
দিন ১৫: কেউ কথা রাখে না। মন্ত্রীরা বলেছিলেন, সাময়িক বন্ধ! ১৫ দিন হয়ে গেল, সাময়িক বন্ধ আর কবে শেষ হবে?
দিন ১৬: নাহ্, আজকেও খোলেনি।
দিন ১৭: ফেসবুক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে মিটিং নাকি ভালো হয়েছে। কিন্তু লাভ কী? মন্ত্রী বলেছেন, এই চুক্তির সঙ্গে ফেসবুক বন্ধের কোনো সম্পর্ক নেই। নাশকতা ঠেকাতেই ফেসবুক বন্ধ। তবে কী…! নাহ্, কিছুই বুঝতে পারছি না।
দিন ১৮: রাস্তায় আজ তিথির মতো একটা মেয়েকে দেখলাম! ইশ্, কী চান্সটাই না মিস হলো! ফেসবুক থাকলে তিথিকে জিজ্ঞেস করতে পারতাম, রাস্তায় যাকে দেখলাম, তিনি কি আপনি? ইশ্ রে…!
দিন ১৯: ফেসবুক বন্ধ তো কী হয়েছে, আমি তিথিকে ভুলিনি! আচ্ছা, তিথি আমাকে মনে রেখেছে তো? এ কদিনে ও কি আমার কথা ভেবেছে?
দিন ২০: পোলাপান গুজব রটাতে এত পছন্দ করে কেন? টংদোকানে চা খাচ্ছিলাম। একজন বলল, ফেসবুকে নাকি নরমালি ঢোকা যাচ্ছে। শুনে এক দৌড়ে বাসায় এসে দেখি ব্যাটা ব্লাফ দিছে। ধুর!
দিন ২১: অনেকেই বলছে, ফেসবুক চিরতরে বন্ধ করে দিয়েছে! কর্তৃপক্ষ কীভাবে পারল এতগুলো তরুণের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্ল্যাটফর্ম ফেসবুক বন্ধ করতে!
দিন ২২: পূর্বপুরুষদের কথা ভাবলে অবাক লাগে। ফেসবুক ছাড়া তাঁরা কীভাবে বেঁচে ছিলেন?
দিন ২৩: ও রে, ফেসবুক খুলে দিয়েছে রে! ফেসবুক সত্যি সত্যি খুলে দিয়েছে! আমার এখনো বিশ্বাস হচ্ছে না! মোবাইল ফোন দিয়ে ফেসবুকে ঢুকলাম, তারপরও বিশ্বাস হচ্ছে না! আমার হাত-পা কাঁপছে! জীবনে এত আনন্দ কেন! ওরে ফেসবুক রে… (অতিরিক্ত উত্তেজনায় তরুণ জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছেন!)

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ

ই-মেইল :Sundaysylhet@Gmail.Com
মোবাইল : ০১৭১১-৩৩৪২৪৩ / ০১৭৪০-৯১৫৪৫২ / ০১৭৪২-৩৪৬২৪৪
Designed by ওয়েব হোম বিডি