সিলেটে স্বাস্থ্য বিধি মেনে ঈদের নামাজ পড়ার নির্দেশ মেট্রোপলিটন পুলিশের

প্রকাশিত: ৩:৩১ অপরাহ্ণ, মে ২৩, ২০২০

সিলেটে স্বাস্থ্য বিধি মেনে ঈদের নামাজ পড়ার নির্দেশ মেট্রোপলিটন পুলিশের

সানডে সিলেট : শনিবার, ২৩ মে ২০২০ : স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করতে নির্দেশনা দিয়েছে সিলেট মহানগর পুলিশ। শনিবার (২৩ মে) গণমাধ্যমে প্রেরিত সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) মো. জেদান আল মুসা স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ নির্দেশনা প্রদান ও অনুরোধ জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পবিত্র ঈদুল ফিতরে সিলেট মহানগরবাসীকে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা। নাগরিক জীবনের নিরাপত্তা বিধান এবং বৈশ্বিক মহামারী করোনা (কোভিড-১৯) প্রতিরোধে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করা হয়।

 

জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ কর্তৃক জারিকৃত ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে প্রেরিত নির্দেশাবলী অনুসরণ করে নিম্নবর্ণিত শর্তসাপেক্ষে সিলেট নগরবাসীকে ১৪৪১ হিজরি/২০২০ সালের পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজের জামায়াত আদায়ের জন্য অনুরোধ করা হলো- বর্তমানে সারা বিশ্বসহ আমাদের দেশে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) এর কারণে মুসল্লিদের জীবনের ঝুঁকি বিবেচনা করে এ বছর ঈদগাহ বা খোলা জায়গার পরিবর্তে ঈদের নামাজের জামায়াত নিকটস্থ মসজিদে আদায় করার জন্য অনুরোধ করা হলো। প্রয়োজনে একই মসজিদে একাধিক জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে।

 

ঈদের নামাজের জামায়াতের সময় মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। নামাজের পূর্বে সম্পূর্ণ মসজিদ জীবানুনাশক দ্বারা পরিষ্কার করতে হবে।

মুসল্লিগণ প্রত্যেকে নিজ নিজ দায়িত্বে জীবাণুমুক্ত করে জায়নামাজ নিয়ে আসবেন।
করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধ নিশ্চিতকল্পে মসজিদে ওজুর স্থানে সাবান/হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে।
মসজিদের প্রবেশদ্বারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার/হাত ধোয়ার ব্যবস্থাসহ সাবান-পানি রাখতে হবে।
প্রত্যেককে নিজ নিজ বাসা থেকে ওজু করে মসজিদে আসতে হবে এবং ওজু করার সময় কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে।
ঈদের নামাজের জামায়াতে আগত মুসল্লিকে অবশ্যই মাস্ক এবং নিজস্ব টুপি পরে মসজিদে আসতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না।
ঈদের নামাজ আদায়ের সময় কাতারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্য বিধি অনুসরণ করে দাঁড়াতে হবে।
এক কাতার অন্তর অন্তর কাতার করতে হবে।
শিশু, বায়োবৃদ্ধ, যে কোন অসুস্থ্য ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তি ঈদের নামাজের জামায়াতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না।
সর্বসাধারণের সুরক্ষা নিশ্চিত কল্পে, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনীর নির্দেশনা অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে।
করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধ নিশ্চিতকল্পে মসজিদে জামায়াত শেষে কোলাকুলি এবং পরষ্পর হাত মেলানো পরিহার করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে।
করোনাভাইরাস মহামারী থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ শেষে মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে দোয়ার করার জন্য খতিব ও ইমামগণকে অনুরোধ করা যাচ্ছে।
সম্মানিত খতিব, ইমাম এবং মসজিদ পরিচালনা কমিটি বিষয়গুলো বাস্তবায়ন নিশ্চিত করবেন।

বিজ্ঞপ্তিতে পুলিশকে তথ্য দিতে এবং প্রয়োজনে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের সহায়তা নিতে বলা হয়েছে।

 

এসএমপি কন্ট্রোল রুম ০৮২১-৭১৬৯৬৮, ০১৭১৩-৩৭৪৩৭৫, ০১৯৯৫-১০০১০০। আকস্মিক বিপদের মুহুর্তে ৯৯৯ নম্বরের সহায়তা নিন।সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষা, অপরাধ দমন এবং শান্তিপূর্ণভাবে বসবাসের জন্য নগরবাসীর সহযোগিতা কামনা করেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বশেষ

ই-মেইল :Sundaysylhet@Gmail.Com
মোবাইল : ০১৭১১-৩৩৪২৪৩ / ০১৭৪০-৯১৫৪৫২ / ০১৭৪২-৩৪৬২৪৪
Designed by ওয়েব হোম বিডি