স্পেশাল

সহী আকবর নামা!

প্রকাশিত: ১১:৫৬ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৪, ২০২০

সহী আকবর নামা!

 হাসান মো.শামীমঃঃ আকবর হোসেন ভুইয়া। এই মুহুর্তে সিলেট শহরে আলোচিত সমালোচিত এক নাম। সুদর্শন এই যুবক এখন নগর জুড়ে ঘৃণার পাত্র। তার প্রত্যক্ষ মদদে পুলিশ হেফাযতে মারা গেছেন রায়হান । সিলেট বন্দর বাজার পুলিশ ফাড়িতে সংঘটিত এই অস্বাভাবিক মৃত্যুর প্রতিবাদে ফুসে উঠেছে পুরো শহর। মুহুমুর্হ প্রতিবাদ বিক্ষোভে ও ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ায় বন্দর বাজার ফাড়ির ইনচার্জ আকবরকে ক্লোজ করা হয়েছে। কিন্তু জনগনের দাবি তাকে গ্রেফতার করা হোক। অথচ ঘটনার পর থেকেই নাকি আকবর নিখোজ। তার ব্যাপারে মুখ খুলছেন না সংশ্লিষ্টরা। তবে ঘটনা প্রমানিত হলে ফাড়ির পুরো টিম সহ গ্রেফতার হবেন এস আই আকবর ভুইয়া।

আকবর সম্পর্কে খোজ নিতে গিয়ে উঠে এসেছে ভয়ংকর সব তথ্য৷ স্থানীয় একটি ইউটিউব চ্যানেলে নিয়মিত অতিথি শিল্পী হিসেবে অভিনয় করা আকবরের ভেতরে ছিল তার সুন্দর চেহারার ঠিক উল্টো এক কুৎসিত রুপ। টাকার জন্য হেন কোন কাজ নেই যা তিনি করতেন না।

করোনা সংকট কাটাতে লকডাউনের পরবর্তি সময়ে সিলেটের ব্যবসায়িক প্রানকেন্দ্র বন্দর বাজারের সিটি সুপার মার্কেট খুলতে উদ্যত হন ওই মার্কেটের ব্যবসায়ীরা। কিন্তু নিষেধাজ্ঞা দেন বন্দর ফাড়ি ইনচার্জ আকবর। তিনি বলেন সরকারের নিষেধাজ্ঞা থাকায় তিনি মার্কেট খুলতে দিতে পারবেন না। তবে দোকান প্রতি যদি তাকে ১০ হাজার টাকা দেওয়া হয় তাহলে সকাল ৬ টা থেকে ১০ টা পর্যন্ত দোকান খুলতে পারবেন ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীরা এমন প্রস্তাব প্রত্যাখান করলে ক্ষোভে ফেটে পরেন আকবর। তিনি বলতে শুরু করেন পরেও এই মার্কেটে কাউকেই তিনি ব্যবসা করতে দেবেন না। তার কথা শুনে ক্ষুব্ধ হন ওই মার্কেটের ব্যবসায়ী কমিটির নেতৃবৃন্দরা। কিন্তু প্রকাশ্যে কিছু বলতে পারেন নি। এই প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যবসায়ী জানান “এ ধরনের পুলিশ অফিসার টাকার জন্য ভয়াবহ রকম লালায়িত যে এদের কাছে নীতির নুন্যতম চর্চা নেই। সিলেটি অফিসারদের যদি সিলেটে নিয়োগ দেওয়া হত তাহলে অন্তত তারা এত অমানবিক কাজ কর্ম করতে পারতেন না ,সিলেটের বাইরে থেকে আসা পুলিশ সদস্যরা শাহজালালের পুন্যভুমিকে টাকা বানানোর চারনক্ষেত্র মনে করেন,যে কারনে যে কোন খারাপ কাজ করতে পিছপা হননা।

 

আকবর স্থানীয় একটি ইউটিউবে চ্যানেলের নাটকে অতিথি শিল্পী হিসেবে অভিনয় করতেন। সেখানে তার নীতি কথায় অবাক হতেন আকবরের হাতে নানা সময়ে নির্যাতিত মানুষজন। ছাত্রলীগের মদন মোহন কলেজ শাখার এক কর্মীর কাছে একটি বিষয়ে আপোস মীমাংসায় ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন আকবর ভুইয়া। চলমান এক মামলার দায়িত্বপ্রাপ্ত “আয়ু” হওয়ার সুবাদে তিনি এই অনৈতিক প্রস্তাব করেন। তবে বলেন এই টাকার খুব সামান্য অংশ তিনি পাবেন, পুলিশের উর্ধত্বন কর্মকর্তাদের নাম পদবী উল্লেখ করে বলেন বাকি টাকা তাদেরকে দিতে হবে। তবে সিনিয়র এক নেতার কৌশলে আকবরকে প্রমান সহ উল্টো জালে ফেলা হয়। সংগ্রহ করা হয় তার ঘুষ দাবির অডিও রেকর্ড, আসামীর সাথে বসে কথা বলার সিসি ফুটেজ। সে যাত্রা ওই নেতার পায়ে ধরে ছাড়া পান অভিনেতা আকবর। তবে থেমে থাকেনি তার খারাপ কাজ। ভোরবেলা সিলেট শহরে পৌছানো যে কোন বয়সী নারী পুরুষ তার নেতৃত্বাধীন টিমের শিকার হতেন। ছিনতাইকারীদের না ধরে ভোর থেকেই ক্বীন ব্রিজ এলাকায় সিএনজি তল্লাশি করা,সিলেট আগত মানুষজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করাই ছিলো তাদের মুল কাজ।  বিভিন্ন ভাবে হয়রানীর মাধ্যমে ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে টাকা তুলতো আকবর বাহিনী। সর্বশেষ নিরীহ যুবক রায়হানকে একই কায়দায় তুলে নিয়ে তার পরিবারের কাছে দশ হাজার টাকা দাবি করা হয়। না দেওয়ায় ফাড়ির মধ্যেই তাকে এমন ভাবে পেটানো হয় যে মৃত্যুর কোলে ঢলে পরেন রায়হান। এ ঘটনায় ক্ষোভে উত্তাল হয়ে আছে পুরো সিলেট। 

(চলবে)

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ

ই-মেইল :Sundaysylhet@Gmail.Com
মোবাইল : ০১৭১১-৩৩৪২৪৩ / ০১৭৪০-৯১৫৪৫২ / ০১৭৪২-৩৪৬২৪৪
Designed by ওয়েব হোম বিডি