স্পেশাল

মন্ত্রীর পদত্যাগ কিংবা ইন্টারনেট বন্ধ প্রশ্নফাঁসের সমাধান নয়: জাফর ইকবাল

প্রকাশিত: ৪:৪৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮

মন্ত্রীর পদত্যাগ কিংবা ইন্টারনেট বন্ধ প্রশ্নফাঁসের সমাধান নয়: জাফর ইকবাল

সানডে সিলেট ডেস্ক: মঙ্গলবার, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ : শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ অথবা ইন্টারনেট বন্ধ করে প্রশ্নফাঁস ঠেকানো সম্ভব নয় মন্তব্য করে অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেছেন, কীভাবে প্রশ্ন ফাঁস হচ্ছে তা আগে খুঁজে বের করতে হবে।

বুধবার সিলেটের মীরেরময়দানে বিশ্ব বেতার দিবসের অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নে এ কথা বলেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের এই শিক্ষক।

তিনি বলেন, “শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ এর সঠিক সমাধান নয়। প্রশ্নফাঁসের মূল কারণ উদ্ঘাটন করে এর সমাধান করাটাই সব চেয়ে বেশি প্রয়োজন।”

চলতি এসএসসিতে এই পর্যন্ত সবগুলো বিষয়েরই প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে। পরীক্ষা শুরুর আগেই সেই প্রশ্ন চলে এসেছে ফেইসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে।

দেশজুড়ে সমালোচনার মুখে প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে পরীক্ষা শুরুর সময় ইন্টারনেটের গতি কমিয়ে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েও সরে আসে সরকার। এ নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগের দাবি উঠে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে।

জাফর ইকবাল বলেন, “এভাবে প্রশ্নফাঁস চলতে থাকলে এদেশে শিক্ষার কোনো গুরুত্ব থাকবে না। সরকারকে এগুলো বন্ধ করতে হবে।”

প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে গত কয়েক বছর ধরেই সোচ্চার অবস্থানে থাকা এই লেখক বলেন, যখন তিনি শহীদ মিনারে বৃষ্টিতে ভিজে আন্দোলন করেছেন, সরকার তখন প্রশ্নফাঁসের কথা স্বীকারও করেনি।

“এখন স্বীকার করা হচ্ছে, কিন্তু কার্যকর কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না।”

ইন্টারনেট বন্ধের কথা না ভেবে প্রয়োজনে প্রশ্ন ছাপার বিকল্প জায়গা খোঁজার পরামর্শ দেন জাফর ইকবাল।

“কীভাবে প্রশ্ন ফাঁস রোধ করা যায়, সে বিষয়ে ভাবতে হবে, দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে। যারা প্রশ্ন ফাঁসের সাথে জড়িত তাদের শাস্তি দিতে হবে।”

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী ইতোমধ্যে জাতীয় সংসদে জানিয়েছেন, প্রশ্নফাঁস বন্ধে পর্যায়ক্রমে এমসিকিউ তুলে দেওয়ার কথা ভাবছেন তারা।

কেন্দ্রের আঞ্চলিক পরিচালক মোঃ ফখরুল আলম-এর সভাপতিত্বে ও সহকারী পরিচালক পবিত্র কুমার দাশ এর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- মদন মোহন কলেজের অধ্যক্ষ ড. আবুল ফতেহ ফাত্তাহ, আঞ্চলিক প্রকৌশলী মানোয়ার হোসেন খান, উপ-আঞ্চলিক পরিচালক আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তারিক, মোহাম্মদ আব্দুল হক, মোঃ হাবিবুর রহমান, উপ-বার্তা নিয়ন্ত্রক সঞ্জয় সরকার, উপ-আঞ্চলিক প্রকৌশলী আবুল হাছান মোঃ ফয়সল, সহকারী পরিচালক মোঃ জাকিরুল ইসলাম, প্রদীপ কুমার দাস, মোঃ জোনায়েদ হোসেন, জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি আজিজ আহমদ সেলিম, সময় টিভির ব্যুরো প্রধান ইকরামুল কবির, প্রেসক্লাব ফাউন্ডেশনের সভাপতি আল-আজাদ, সিলেট শিশু একাডেমীর সাবেক শিশু সংগঠক জামান মাহবুব চৌধুরী, সাংবাদিক আব্দুর রশিদ রেনু, দৈনিক সিলেটের ডাক এর বার্তা সম্পাদক সমরেন্দ্র বিশ্বাস, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শামসুল আলম সেলিম, সিলেট কেন্দ্রের কর্মকর্তা-কর্মচারী, অনিয়মিত শিল্পী, নিজস্ব শিল্পী, অধিবেশন তত্ত্বাবধায়ক, কলাকুশলী, রেডিও পল্লীকন্ঠ, বিভিন্ন বেতার শ্রোতাক্লাবসহ সিলেটের সরকারী বেসরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সুধীসমাজ ও সাংবাদিকবৃন্দ র‌্যালীতে অংশগ্রহণ করেন। পরবর্তীতে বেতার প্রাঙ্গণে বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলার আয়োজন করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ