স্পেশাল

ফের সচল এলআরবি: ফের উঠলো বিতর্ক

প্রকাশিত: ৪:০২ অপরাহ্ণ, জুন ২৪, ২০১৯

ফের সচল এলআরবি: ফের উঠলো বিতর্ক

সানডে সিলেট ডেস্ক: সোমবার, ২৪ জুন ২০১৯ : প্রতিষ্ঠাতা, গিটার কিংবদন্তি আইয়ুব বাচ্চুর হঠাৎ প্রস্থান, ভোকাল ও গিটার সদস্য সংকট, ইন্ডিপেন্ডেন্ট বালামের সংযুক্তি, পরিবারের প্রতিক্রিয়া, অন্যায্য অজুহাতে দলের নাম বদল ও পুনঃস্থাপন এবং ভক্ত-সমালোচকদের তোপে-চাপে মাঝে লম্বা সময় স্থবির ছিল দেশের সবচেয়ে গতিময় ব্যান্ড ‘এলআরবি’র কার্যক্রম।
কারণ, অভিভাবক শূন্যতা।

তাই, মাঝে অসহায় চুপ-সময় পার করে দলের অন্যতম প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য সাইদুল হাসান স্বপন খুব নীরবে ফের এলআরবি’র লকেট গলায় ঝুলিয়ে নেমে পড়লেন গিটার নিয়ে। সঙ্গে আরেক অন্যতম সতীর্থ ড্রামার রোমেল। ঘটনাটি ঘটলো গেল বিশ্ব সংগীত দিবসে (২১ জুন) ঢাকার ক্যাডেট কলেজ ক্লাবে। স্বপন-রোমেলের সঙ্গে এদিন মঞ্চে যুক্ত হলেন ‘ফেরারি মন’-খ্যাত ভায়োলিন বাদক সুনীল দা। যদিও আগে প্রায়শই বাজাতেন এলআরবি’র সঙ্গে। কিন্তু এই যাত্রায় তাদের সঙ্গে ছিলেন না পুরনো সদস্য গিটারিস্ট মাসুদ! নেই সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ার ও দলের ম্যানেজার শামীম আহমেদ-ও! উল্টো দেখা গেল মঞ্চে স্বপন-রোমেল-সুনীল দা’র সঙ্গে নতুন দুই মুখ। মঞ্চে ভোকালের ভার নিয়েছেন ড্রামার রোমেল। আইয়ুব বাচ্চুর কণ্ঠ-ছায়া ধরে গাইছেন ভালোই। তবে কি বালাম নেই? না থাকলেও ক্ষতি কি! কিন্তু দলের অন্যতম দুই সদস্য মাসুদ আর শামীম অনুপস্থিত থাকবেন কেন?

ঘটনার দুদিন পর এমন প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে শামীম আহমেদ জানালেন ক্ষোভ কিংবা অভিমান। তার ভাষ্যে, ‘স্বপন ভাই এলআরবির প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য। সেই সম্মানটা ওনাকে অবশ্যই করি। বাচ্চু ভাইয়ের সম্মান নষ্ট করতে চাইনি বলে আমরা এখনও চুপ আছি। ২১ জুন তারা যে শো করেছে এ বিষয়ে আমরা (শামীম ও মাসুদ) কিছু জানি না।’

শামীম আরও বলেন, ‘এলআরবি কোনও সস্তা ব্যান্ড নয়। বাচ্চু ভাইয়ের নাম বিক্রি করে আমরা পেট চালাতে চাই না। যদি তা-ই হয়, তাহলে ২০/২৫ হাজার টাকার শো করতে হবে কেন আমাদের? এ বিষয়গুলো নিয়ে আপত্তি করায় তারা (স্বপন-রোমেল) আমাদের এড়িয়ে চলছেন। এটা খুবই বিব্রতকর এবং দুঃখজনক ঘটনা।’

এটুকু স্পষ্ট, আইয়ুব বাচ্চুর অনুপস্থিতিতে এরইমধ্যে এলআরবি’র চার সদস্যের মধ্যে সমান দুই ভাগে ভাগ হয়ে গেছে! একদিকে স্বপন-রোমেল, অন্যদিকে শামীম-মাসুদ।

এরমধ্যে স্বপন আর রোমেলের সঙ্গে গিটারিস্ট হিসেবে যুক্ত হলেন দুই তরুণ তাহিম ও আরিফ, সঙ্গে জ্যেষ্ঠ মিউজিশিয়ান সুনীল। কিন্তু মূল চার সদস্যের মধ্যে মতের অমিল কোথায়? তবে কি আকাশছুঁই এলআরবি এভাবেই পতিত হবে ধুলোয়?

প্রশ্নের উত্তরে পাওয়া গেল মৃদুভাষী বেজিস্ট ও দলের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য স্বপনের অসহায় মন্তব্য। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বললেন, ‘আমি আর রোমেল বস-এর (আইয়ুব বাচ্চু) মতো মিউজিক ছাড়া আর কিছুই করি না। গত দেড় মাস ধরে বাকি সদস্যরা (শামীম ও মাসুদ) আমাদের সঙ্গে কোনও যোগাযোগ করেনি। ডেকে একটা শো দেয়নি। তাদের ব্যবসা-বাণিজ্য আয় রোজগারের রাস্তা আছে।

তাদের গান-বাজনা করে বাঁচা লাগে না। আমরা তাদের অপেক্ষা করতে করতে চরম সংকটে পড়ে গেছি। কারণ, শো করা ছাড়া আমাদের বাঁচার আর কোনও পথ নাই। এটা তারাও ভালো করেই জানে।’

তিনি বলেন, ‘পরে তাদের কোনও সাড়া না পেয়ে বাধ্য হয়ে দুজনে (স্বপন ও রোমেল) মিলে শো হাতে নিলাম।’
কিন্তু এতদিনের পুরনো সতীর্থদের সঙ্গে এমন ভুল বোঝাবুঝি হঠাৎ তৈরির কারণ কী?

স্বপন বললেন, ‘বিভিন্ন জনের কাছ থেকে খবর পাচ্ছি, এলআরবি-কে শো দেওয়ার জন্য যোগাযোগ করা হলে ম্যানেজার শামীম বলে, ব্যান্ড সদস্যরা এখন আপসেট, তাই শো করবেন না! অথচ সে ঠিকই সোলস-সহ অন্য দলের শো করছে নিয়মিত। আর আমরা না খেয়ে ঘরে পড়ে আছি। এসব স্যাবোটাজ বস বেঁচে থাকতেও করেছে সে (শামীম)।

সবচেয়ে বড় কথা, বস চলে যাওয়ার পর আমাদের (স্বপন ও রোমেল) কোনও মতামতের তোয়াক্কাই করে না সে। অবশেষে বাধ্য হয়ে রোমেল আর আমি আলাদা চলার সিদ্ধান্ত নিলাম। কারণ, এলআরবি’কে চাপিয়ে রাখা মানে বসকে অসম্মান করা, আমাদের না খেয়ে মরা। সেটি সহ্য করতে পারি না আমরা।’

সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ার শামীম আহমেদ অন্য ব্যান্ডের কাজ করেন। কিন্তু এলআরবি’র আরেক সদস্য আব্দুল্লাহ আল মাসুদের তো আপনাদের সঙ্গে থাকা স্বাভাবিক ছিল। তিনি কেন নেই? জবাবে স্বপন বললেন, ‘না, মাসুদ আমাদের সঙ্গে থাকবে না। কারণ, তারা (শামীম ও মাসুদ) দুজন মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ। এলআরবি’তে ঢোকার আগে থেকেই মাসুদ এমন।’

স্বপন জানান, এখন থেকে তিনি আর রোমেল এবং নতুন দুই সদস্য আইয়ুব বাচ্চুর পরিবারের পরামর্শ নিয়ে এলআরবি’র কার্যক্রম এগিয়ে নেবেন। কারণ হিসেবে বলেন, এলআরবি-কেও বাঁচাতে হবে, তাদেরও বাঁচতে হবে।

১৯৯১ সালের ৫ এপ্রিল এলআরবি গড়ে তোলেন আইয়ুব বাচ্চু। সঙ্গে ছিলেন মিল্টন আকবর, এসআই টুটুল ও সাইদুল হাসান স্বপন।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ