স্পেশাল

ফাঁদে আটকা গন্ধগোকুল : টিলাগড় ইকোপার্কে অবমুক্ত

প্রকাশিত: ৪:৪৭ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৭

ফাঁদে আটকা গন্ধগোকুল : টিলাগড় ইকোপার্কে অবমুক্ত

সানডে সিলেট ডেস্ক : শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ : খাবার সংকট প্রকট আকার ধারন করায় প্রায়ই লোকালয়ে হানা দিয়ে মুরগি, কবুতর খেয়ে ফেলে গন্ধগোকুল। তাই ধরার জন্য লোহার ফাদ তৈরি করেন অনেকে। ফাদে আটক করে, মেরেও ফেলেন অনেকে। এবারও ওসমানীনগরে ধরা পড়ল আরেকটি গন্ধগোকুল। মারার আগেই তা চোখে পড়ে ডা. তানভীর আহমদ অপুর। তিনি বাধা দেন। খবর দেন প্রাধিকারের সাবেক সভাপতি মনজুর কাদের চৌধুরীকে।

খবর পেয়ে আজ সকালে ওসমানীনগর থানার আহমদ নগরে ছুটে যান ভূমিসন্তান বাংলাদেশের সমন্বয়কারী আশরাফুল কবির, প্রাধিকারের সাবেক কোষাধ্যক্ষ শাহরুল আলম ও পরিবেশকর্মী অলক। গন্ধগোকুলটি উদ্ধার করে নিয়ে আসেন তারা। এ সময় কামাল, জসিম সহ স্থানীয়রা সহায়তা করেন।

“গন্ধগোকুল, যার স্থানীয় নাম খাটাশ (ইংরেজি: Asian palm civet; বৈজ্ঞানিক নাম: Paradoxurus hermaphroditus) ‘সাধারণ বা এশীয় তাল খাটাশ’, ‘ভোন্দর’, ‘নোঙর’,‘সাইরেল’ বা ‘গাছ খাটাশ’ নামে পরিচিত। মোরগ-কবুতর ফার্মের ভালো করে তারের বেড়া দিলে গন্ধগোকুল মোরগ-কবুতর খেতে পারতো না, মারতে হতো না তাদের ”- বলছিলেন প্রাধিকারের সাবেক সভাপতি মনজুর।

এদিকে, আজ বিকেলে গন্ধগোকুলটি টিলাগড় ইকোপার্কের গভীর বনে অবমুক্ত করা হয়। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন প্রাধিকারের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ উজ্জ্বল, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক জুনেদ আহমদ, পার্কে দর্শনার্থীএস এম গুলজার আহমদ, বাঘমারা এলাকার মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, ইকোপার্কের বাগান মালি আজাদসহ আরও অনেকে।

“দিনে দিনে যেভাবে আবাসিক সংকট হচ্ছে, প্রাণীগুলো মানুষের আবাসস্থলে আসতে বাধ্য হচ্ছে। দ্রুত হারে কমছে গন্ধগোকুলের সংখ্যা। দরকার তাদের বাচানোর” বলছিলেন আশরাফুল কবির।

উল্লেখ্য যে গত বছর একই দিনে একটি প্রাপ্তবয়স্ক স্ত্রী গন্ধগোকুল এখানে অবমুক্ত করেছিলেন তারা। এবার পুরুষ গন্ধগোকুল অবমুক্ত করলেন পরিবেশকর্মীরা।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ