স্পেশাল

প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো দুর্গাপূজা

প্রকাশিত: ৭:১১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৬, ২০২০

প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো দুর্গাপূজা

সানডেসিলেটডটকমঃ  সিলেটে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হলো সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে শুভ-কল্যাণ ও সব সম্প্রদায়ের মানুষের মধ্যে নিরন্তর শান্তি-সম্প্রীতির আকাঙ্খা নিয়ে বৃহস্পতিবার ষষ্ঠীপূজার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছিল দুর্গাপূজা।  আজ সোমবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরের পর থেকে প্রতিমা বিসর্জন শুরু হয়।

নগরীর চাঁদনীঘাটে সোমবার বেলা ১টায় প্রতিমা বিসর্জনের উদ্বোধন করেন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, মহানগর পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি সুব্রত দেব, পূজা পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মৃত্যুঞ্জয় ধর ভোলা, কেন্দ্রীয় পূজা কমিটির সদস্য রজতকান্তি ভট্রাচার্যসহ বিভিন্ন পূজা উদযাপন কমিটির নেতৃবৃন্দ।

এসময় থেকে সিলেটে দেবীকে বিদায় জানানোর আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এরপর একের পর এক বিভিন্ন মণ্ডপ থেকে ঘাটে প্রতিমা আসতে থাকে বিসর্জনের জন্য।দেবী দুর্গাকে শেষ বিদায় দিতে সিলেটের সুরমা নদীর তীরে ভিড় করেন হাজারো ভক্তবৃন্দ।
শঙ্খ আর উলুধ্বনি, খোল-করতাল-ঢাকঢোলের সনাতনী বাজনার সঙ্গে দেবী-বন্দনার গানের মধ্য দিয়ে বিজয়া দশমীর শোভাযাত্রায় অংশ নেন ভক্তরা। বিধি-নিষেধের কারণে শোভাযাত্রায় ভক্তদের সংখ্যা ছিলো অন্য বছরের তুলনায় কম।

চাঁদনীঘাট ছাড়াও নগরীর বিভিন্ন এলাকায় প্রতিমা বিসর্জন দেয়া হয়। বিসর্জনের জন্য একটি ট্রাকে একসঙ্গে অনেক মানুষ গেলেও এবার একটি ট্রাকে প্রতিমা বিসর্জনের জন্য ১০ জনের বেশি মানুষ দেখা যায়নি।
প্রতিমা ঘাটে নেয়ার পর ভক্তরা শেষবারের মতো ধূপধুনো নিয়ে আরতি করেন। শেষে পুরোহিতের মন্ত্রপাঠের মধ্য দিয়ে দেবীকে নৌকায় তুলে বিসর্জন দেয়া হয়।
উৎসব সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো পরিহার করে সাত্ত্বিক পূজায় সীমাবদ্ধ রাখতে  সরকারি বিধিনিষেধ মেনে সন্ধ্যার আগেই সিলেটে শেষ হয় প্রতিমা বিসর্জন।

পূজা উদযাপন পরিষদ জানায়, এবার সিলেট জেলা ও মহানগরে ৫৪০ টি মণ্ডপে সার্বজনীন পূজা উদযাপন হয়েছে। আর ৪৪ টি মণ্ডপে পারিবারিক ভাবে পূজা উদযাপন করা হয়।

আয়োজকরা আরো জানান, প্রতি বছরের তুলনায় এ বছর একটু ভিন্ন ভাবে পূজা উদযাপন করতে হয়েছে। কারণ কোভিড-১৯ করোনাভাইরাসের প্রাদূভাবের প্রভাবে। বিজয়া দশমীতে দুর্গার আশীর্বাদ নিয়েছেন ভক্তরা। জ্যেষ্ঠদের প্রণাম করে আশীর্বাদ নিয়েছে কনিষ্ঠরা।শুভেচ্ছা বিনিময় হয়েছে স্বজনদের সঙ্গে বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজার দশমীতে।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ