স্পেশাল

নানা সমালোচনার পর করোনার চিকিৎসা বন্ধ নর্থ ইস্ট হাসপাতালে

প্রকাশিত: ৬:২৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০

নানা সমালোচনার পর করোনার চিকিৎসা বন্ধ নর্থ ইস্ট হাসপাতালে

সানডে সিলেট ডেস্ক

নানা সমালোচনা ও সরকারের উচ্চ পর্যায়ে অভিযোগের পর অবশেষে সিলেট নর্থ ইস্ট

মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসা কার্যক্রম বন্ধ করে

দেওয়া হয়েছে। এর আগে অনেক ঢাকঢোল পিটিয়ে সরকারের সাথে করোনা সেবায় যুক্ত

হয় বেসরকারী এই হাসপাতালটি। কিন্তু রোগীদের অভিযোগ ছিল করোনা রোগীদের সেবার

নামে শুধু নিজেদের পকেট ভারী করেছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বিনিময়ে মিলেনি নুন্যতম

সেবা। এ ব্যাপারে সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় বরাবর লিখিত অভিযোগও করা হয়েছে।

যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা অনুযায়ী তারা কোভিড

সেবা বন্ধ করছেন। করোনার সংক্রমণ কমে যাওয়াকে অজুহাত দেখিয়ে এবং অন্য রোগের

আক্রান্তদের সেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে গতকাল রবিবার (২০ সেপ্টেম্বর) থেকে করোনার

চিকিৎসা সেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের করোনা ইউনিটের

সমন্বয়ক ডা. নাজমুল ইসলাম।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর সোমবার অতিরিক্ত বিল, ৫ ঘণ্টা লাশ আটকে রেখে টাকা আদায় এবং করোনা রিপোর্ট ‘নেগেটিভ’ হওয়ার পরও রোগীকে কোভিড-১৯ ইউনিটে রেখে চিকিৎসা প্রদানের জন্য হাসপাতালটির বিরুদ্ধে স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়সহ সিলেট জেলা প্রশাসক ও সিলেট সিভিল সার্জন বরবারে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন সিলাম ইউনিয়নের উলালমহল গ্রামের মৃত নাসির উদ্দিনের ভাতিজা আব্দুল বারী। অভিযোগপত্রে আব্দুল বারী বলেন, ‘নর্থ ইস্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আমাদের অসহায়ত্বকে পুঁজি করে আমার চাচাকে করোনা রোগী সাজিয়ে চিকিৎসা প্রদানে বাধ্য করেছে। ফলে যেখানে দুই দিনে ১০-১৫ হাজার টাকা বিল আসার কথা, সেখানে আমাদের বিল পরিশোধ করতে হয়েছে ৭৪ হাজার টাকা। এছাড়াও টাকার জন্য লাশ আটকে রেখে অমানবিক কাজ করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ’এ অভিযোগ দায়ের এক সপ্তাহের মধ্যে বন্ধ হলো অভিযুক্ত হাসপাতালে করোনা সেবা।

হাসপাতালটির করোনা ইউনিটের সমন্বয়ক ডা. নাজমুল ইসলাম। বলেন, ‘রবিবার থেকে আমরা করোনা রোগীদের চিকিৎসা বন্ধ করছি। আগামী মাসে আমাদের মেডিকেল কলেজ শাখার পরীক্ষা শুরু হবে। এছাড়া সিলেটে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা কমছে। এসব কারণেই আমরা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

সরকার বিভিন্ন কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল বন্ধ করে দিচ্ছে। তাই সাধারণ রোগীদের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডা. নাজমুল ইসলাম। গতকাল রবিবার থেকেই তারা এই সেবা বন্ধ করেছেন। ফলে এখন থেকে করোনা পজেটিভ কোনো রোগী ভর্তি করা হবে না। তবে যেসব কোভিড পজেটিভ রোগী হাসপাতালে ভর্তি আছেন তাদের সম্পূর্ণ চিকিৎসা নিশ্চিত করা হবে। এছাড়া করোনা সন্দেহজনক হিসেবে যারা হাসপাতালে ভর্তি হবেন তাদের আইসোলেশনে রাখা হবে।

পরবর্তীতে তাদের পরীক্ষায় করোনা পজেটিভ হলে শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতাল বা অন্য কোনো হাসপাতালে পাঠানো হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ

ই-মেইল :Sundaysylhet@Gmail.Com
মোবাইল : ০১৭১১-৩৩৪২৪৩ / ০১৭৪০-৯১৫৪৫২ / ০১৭৪২-৩৪৬২৪৪
Designed by ওয়েব হোম বিডি