স্পেশাল

জিম্বাবুয়েকে ২১৭ রানের লক্ষ্য দিল বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ৩:৫২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৩, ২০১৮

জিম্বাবুয়েকে ২১৭ রানের লক্ষ্য দিল বাংলাদেশ

সানডে সিলেট ডেস্ক :মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ : তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসানের শতরানের জুটিতে ভালো সূচনা পাওয়া বাংলাদেশ দিক হারায় হঠাৎ ধসে। ২৩ রানের মধ্যে ৬ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে বিপদে পড়ে দলটি। সেখান থেকে স্বাগতিকদের ৯ উইকেটে ২১৬ পর্যন্ত নিয়ে গেছে টেলএন্ডাররা।

তামিম (৭৬) ও সাকিব (৫১) ছাড়া বাংলাদেশের কোনো ব্যাটসম্যান বিশ পর্যন্ত যেতে পারেননি। ওয়ানডেতে নিজের প্রথম ইনিংসে ১৯ রান করে ফিরেন সানজামুল ইসলাম। ক্যারিয়ার সেরা ব্যাটিংয়ে ১৮ রানে অপরাজিত থাকেন মুস্তাফিজুর রহমান। এক ছক্কায় ৪ বলে অপরাজিত ৮ রান করেন রুবেল হোসেন। শেষ দুই উইকেটে ৪৬ রান যোগ করে বাংলাদেশ।

৩২ রানে ৪ উইকেট নিয়ে জিম্বাবুয়ের সেরা বোলার লেগ স্পিনার গ্রায়েম ক্রিমার। পেসার কাইল জার্ভিস ৩ উইকেট নেন ৪২ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ৫০ ওভারে ২১৬/৯ (তামিম ৭৬, এনামুল ১, সাকিব ৫১, মুশফিক ১৮, মাহমুদউল্লাহ ২, সাব্বির ৬, নাসির ২, মাশরাফি ০, সানজামুল ১৯, মুস্তাফিজ ১৮*, রুবেল ৮*; জার্ভিস ৩/৪২, চাতারা ১/৩৩, মুজারাবানি ০/৩৬, রাজা ১/৩৯, ক্রিমার ৪/৩২, ওয়ালার ০/৩২)

বাংলাদেশের দুইশ

২৩ রানের মধ্যে ৬ উইকেট হারিয়ে এক সময়ে বাংলাদেশের দুইশ পর্যন্ত যাওয়া নিয়ে শঙ্কা জেগেছিল। দলকে টেনেছেন টেলএন্ডার ব্যাটসম্যানরা। ৪৯তম ওভারে তেন্দাই চাতারা বলে মুস্তাফিজুর রহমানের চারে দলের সংগ্রহ যায় দুইশ রানে।

স্কোর দুইশর কাছে নিয়ে আউট সানজামুল

দলকে দুইশ রানের কাছে নিয়ে ফিরে গেলেন সানজামুল ইসলাম। তেন্দাই চাতারাকে উড়ানোর চেষ্টায় ক্যাচ দিয়েছেন ব্লেজিং মুজারাবানিকে।

নবম উইকেটে মুস্তাফিজুর রহমানের সঙ্গে সানজামুল গড়েন ২৬ রানের জুটি।

১৯ রান করে সানজামুল ফিরে যাওয়ার সময় বাংলঅদেশের স্কোর ১৯৬/৯। ক্রিজে মুস্তাফিজের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন ১১ নম্বর ব্যাটসম্যান রুবেল হোসেন।

ক্রিমারের শততম উইকেট মাশরাফি

মাশরাফি বিন মুর্তজাকে ফিরিয়ে ম্যাচে নিজের চতুর্থ আর ওয়ানডে ক্যারিয়ারে শততম উইকেট নিয়েছেন গ্রায়েম ক্রিমার। লেগ স্পিনারের জাদুতে দিক হারিয়ে বাংলাদেশের দুইশ পর্যন্ত যাওয়া নিয়েই এখন শঙ্কা।

ক্রিমারের সোজা বলে কট বিহাইন্ড হন মাশরাফি। নন স্ট্রাইকার সানজামুল ইসলামের সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বলে রিভউ নেন অধিনায়ক। তাতে পাল্টায়নি সিদ্ধান্ত।

৪৩ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ১৭৫/৮। উইকেটে সানজামুলের সঙ্গী মুস্তাফিজুর রহমান।

খোঁচা মেরে ফিরলেন নাসির

কাইল জার্ভিসকে যেন উইকেট উপহার দিলেন নাসির হোসেন। খোঁচা মেরে উইকেটরক্ষক ব্রেন্ডন টেইলরকে ক্যাচ দিয়ে ফিরলেন এই অলরাউন্ডার।

দ্রুত উইকেট হারানোয় এখন বাংলাদেশের দুইশ রান করা নিয়েই শঙ্কায়। ২ রান করে নাসির ফেরার সময়ে বাংলাদেশের স্কোর ১৬৮/৭। ২১ রানে স্বাগতিকরা হারিয়েছে ৫ উইকেট।

মাশরাফি বিন মুর্তজার সঙ্গে ক্রিজে যোগ দিয়েছেন সানজামুল ইসলাম।

দুর্দান্ত ক্যাচে সাব্বিরের বিদায়

ক্রেইগ আরভিনের দুর্দান্ত এক ক্যাচে ফিরে গেছেন সাব্বির রহমান। ২০ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ।

কাইল জার্ভিসের শর্ট বলে পুল করেছিলেন সাব্বির। শর্ট মিড উইকেটে ঝাঁপিয়ে এক হাতে ক্যাচ মুঠোয় নেন আরভিন। বুলেট গতির শটে অমন ক্যাচ যেন ঠিক বিশ্বাস হচ্ছিল না সাব্বিরের।

৪০ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ১৬৭/৬। নাসির হোসেনের সঙ্গে ক্রিজে আছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা।

স্টাম্পড হয়ে ফিরলেন তামিম

টানা তিন ওভারে উইকেট নিয়ে বাংলাদেশকে চাপে ফেলে দিলেন গ্রায়েম ক্রিমার। এই লেগ স্পিনারকে বেরিয়ে এসে খেলতে গিয়ে স্টাম্পড হয়ে ফিরেছেন তামিম ইকবাল।

আগের দুই ওভারে মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহকে ফেরানো ক্রিমার তামিমের দামি উইকেট পান গুগলিতে। এগিয়ে এসে মিড উইকেট দিয়ে স্লগ করতে চেয়েছিলেন বাঁহাতি ওপেনার। স্পিন করে বেরিয়ে যাওয়ায় বলের নাগাল পাননি। বাকিটুকু সহজেই সারেন উইকেটকিপার ব্রেন্ডন টেইলর।

১০৫ বলে ৬টি চারে ৭৬ রান করে ফিরেন তামিম। ৩৮.১ ওভারে তার বিদায়ের সময় দলের স্কোর ১৬৪/৫। ক্রিজে সাব্বির রহমানের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন নাসির হোসেন।

গুগলিতে ফিরলেন মাহমুদউল্লাহ

গ্রায়েম ক্রিমারের গুগলি বুঝতেই পারলেন না মাহমুদউল্লাহ। লেগ স্পিন ভেবে খেলতে গিয়ে ফিরলেন এলবিডব্লিউ হয়ে।

ক্রিমারের অফ স্টাম্পের বাইরের বলটি স্পিন করে ভেতরে ঢোকে। ব্যাট ফাঁকি দিয়ে আঘাত হানে প্যাডে। নন স্ট্রাইকার তামিম ইকবালের সঙ্গে কিছুক্ষণ কথা বলে রিভিউ না নিয়ে ফিরে যান মাহমুদউল্লাহ। পরপর দুই ওভারে উইকেট হারিয়ে চাপে বাংলাদেশ।

২ রানে ফিরেন মাহমুদউল্লাহ। ৩৭ ওভার শেষে দলের স্কোর ১৫৮/৪। ১০১ বলে ৭৩ রানে অপরাজিত তামিম। সাব্বির রহমান খেলছেন ৩ বলে ১ রান নিয়ে।

প্রিয় শটে আউট মুশফিক

সুইপ তার সবচেয়ে বেশি রান প্রসবা শট। সুইপেই মুশফিকুর রহিম আউট হয়েছেন অনেকবার। হলেন আরও একবার।

ক্রিজে যাওয়ার খানিক পরই ম্যালকম ওয়ালারকে স্লগ সুইপে ছক্কা মেরেছিলেন। একটু পর গ্রায়েম ক্রিমারকে সুইপ করতে গিয়ে বল লাগল ব্যাটের ওপরের দিকে। শর্ট ফাইন লেগে ক্যাচ।

১৮ রানে আউট মুশফিক। বাংলাদেশ ৩৪.২ ওভারে ৩ উইকেটে ১৪৬।

তামিমের ৬ হাজার

মাইলফলক ছুঁতে প্রয়োজন ছিল ৬৬ রান। ৩৫তম ওভারের প্রথম বলে সিঙ্গেল নিয়ে তামিম ছুঁয়ে ফেললেন সেই মাইলফলক। বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে পেলেন ৬ হাজার রানের দেখা।

তামিমের টানা তৃতীয় ফিফটি

ত্রিদেশীয় সিরিজে টানা তৃতীয় ফিফটি পেয়েছেন তামিম ইকবাল।

১০৬ রানের জুটি ভেঙে সাকিব আল হাসান ফিরে যাওয়ার পরপরই পঞ্চাশ স্পর্শ করেন তামিম। বাঁহাতি এই ওপেনারের লেগেছে ৭৮ বল।

ইনিংসের শুরু থেকে সঠিক বলের জন্য অপেক্ষা করছেন তামিম। খেলছেন এক-দুই নিয়ে। তার ব্যাট থেকে এখন পর্যন্ত এসেছে মাত্র ৪টি চার।

২৮তম ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ১১৬/২। তামিম ৭৯ বলে ৫১ ও মুশফিকুর রহিম ৩ বলে ২ রানে খেলছেন।

ফিফটি করে ফিরে গেলেন সাকিব

টানা দ্বিতীয় ফিফটি তুলে নিয়েছেন সাকিব আল হাসান। তৃতীয় ওভারে ক্রিজে এসে তামিম ইকবালের আগে পৌঁছেছেন পঞ্চাশে। পঞ্চাশ ছোঁয়ার পর বেরিয়ে এসে খেলতে গিয়ে ফিরেছেন স্টাম্পড হয়ে। ৮০ বলে খেলা তার ৫১ রানের ইনিংসে চার ছয়টি।

তিন নম্বরে দারুণ খেলছেন সাকিব। টানা তিন ম্যাচে তামিমের সঙ্গে দ্বিতীয় উইকেটে গড়েছেন পঞ্চাশ ছোঁয়া জুটি।

সিকান্দার রাজাকে একটি ওভার মেডেন খেলেছিলেন সাকিব। ৭৮ বলে ফিফটি পাওয়া এই অলরাউন্ডার পুষিয়ে নিতে অফ স্পিনারের ওপর চড়াও হতে চেয়েছিলেন। কিন্তু বল ব্যাটে খেলতে পারেননি। ফিরে যান স্টাম্পড হয়ে।

২৮তম ওভারের প্রথম বলে সাকিব ফিরে যাওয়ার সময় বাংলাদেশের সংগ্রহ ১১২/২। ক্রিজে তামিমের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন মুশফিকুর রহিম।

বাংলাদেশের একশ

উইকেট থেকে যথেষ্ট সহায়তা পাচ্ছেন স্পিনাররা। তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসানের মতো দুই আক্রমণাত্মক ব্যাটসম্যান ক্রিজে থাকার পরও তাই দ্রুত রান তুলতে পারছে না বাংলাদেশ।

২৫তম ওভারে তিন অঙ্কে গেছে বাংলাদেশের স্কোর। ২৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ১০১ রান। তামিম ইকবাল ৬৮ বলে ৪৪ ও সাকিব আল হাসান ৭৬ বলে ৪৫ রানে অপরাজিত।

তামিমের রেকর্ড

সনাথ জয়াসুরিয়াকে ছাড়িয়ে এক মাঠে ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েছেন তামিম ইকবাল। কলম্বোর আর প্রেমাদাসায় ৭০ ইনিংসে ২ হাজার ৫১৪ রান করেছিলেন জয়াসুরিয়া।

লঙ্কান গ্রেটের রেকর্ড কেড়ে নিতে ৪২ রান দরকার ছিল তামিমের। ২৪তম ওভারে একটি সিঙ্গেল নিয়ে জয়াসুরিয়াকে ছাড়িয়ে যান বাঁহাতি এই ওপেনার। মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রেকর্ড নিজের করে তার লেগেছে ৭৩ ইনিংস।

তামিম-সাকিব জুটির ফিফটি

দ্রুত এনামুল হককে হারানো বাংলাদেশ এগোচ্ছে তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসানের ব্যাটে। অবিচ্ছিন্ন দ্বিতীয় উইকেটে অর্ধশত রানের জুটি গড়েছেন দুই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান।

৬৬ বলে আসে তামিম-সাকিবের জুটির অর্ধশতক। ত্রিদেশীয় সিরিজে দ্বিতীয় উইকেট এটি তাদের তৃতীয় পঞ্চাশ ছোঁয়া জুটি। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে দুই জনে গড়েছিলেন ৭৮ রানের জুটি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৯৯।

১৪ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ৬৬/১। তামিম ৩৩ বলে ২৫ ও সাকিব ৪৫ বলে ২৯ রানে খেলছেন।

জিম্বাবুয়ের ব্যর্থ রিভিউ

তেন্দাই চাতারার বল সুইং করে লেগ দিয়ে বের হয়ে যাচ্ছিল। জায়গায় দাঁড়িয়ে খেলার চেষ্টা করেছিলেন সাকিব আল হাসান। আম্পায়ার কট বিহাইন্ডের জোরালো আবেদনে সাড়া না দিলে রিভিউ নেয় জিম্বাবুয়ে।

রিপ্লেতে দেখা যায় চাতারার সেই বলটি ছিল ‘নো’ বল। তাই শুরুতেই বাতিল হয়ে যায় জিম্বাবুয়ের রিভিউ। বল সাকিবের ব্যাটও স্পর্শ করেনি, ক্যাচ যায় প্যাডে লেগে।

ফিরে গেলেন এনামুল

তৃতীয় ওভারে প্রথম উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। এলবিডব্লিউ হয়ে ফিরে গেছেন এনামুল হক।

তেন্দাই চাতারার আগের ওভারে জোরালো আবেদন থেকে বেঁচে যান এনামুল। কাইল জার্ভিসের বল সুইং করবে না ভেবে খেলেছিলেন এই ওপেনার। ভেতরে ঢোকা বল ব্যাটের কানা ফাঁকি দিয়ে লাগে প্যাডে।

৭ বলে ১ রান করে ফিরেন এনামুল। তার বিদায়ের সময় বাংলাদেশের স্কোর ৬/১। তামিম ইকবালের সঙ্গে ক্রিজে আছেন সাকিব আল হাসান।

অপরিবর্তিত জিম্বাবুয়ে দল

শ্রীলঙ্কার কাছে আগের ম্যাচে হেরে যাওয়া দলটির ওপরই আস্থা রেখেছে জিম্বাবুয়ে। তিন ইনিংসে মাত্র ৪ রান করার পরও টিকে গেছেন ক্রেইগ আরভিন।

জিম্বাবুয়ে দল: গ্রায়েম ক্রিমার, হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, সলোমন মিরে, ক্রেইগ আরভিন, ব্রেন্ডন টেইলর, সিকান্দার রাজা, পিটার মুর, ম্যালকম ওয়ালার, ব্লেজিং মুজারাবানি, তেন্দাই চাতারা, কাইল জার্ভিস।

সাইফের জায়গায় সানজামুল

বাংলাদেশ দলে পরিবর্তন একটি। এক ম্যাচ পর দলে ফিরেছেন সানজামুল ইসলাম। বাঁহাতি স্পিনারকে জায়গা দিতে গিয়ে বাদ পড়েছেন অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন। আগের ম্যাচের মতো এবারও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দুই বাঁহাতি স্পিনার নিয়ে খেলছে স্বাগতিকরা।

বাংলাদেশ দল: তামিম ইকবাল, এনামুল হক, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, মাশরাফি বিন মুর্তজা, সানজামুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন

টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

ত্রিদেশীয় সিরিজে টানা তিন ম্যাচে টস জিতলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা।

উইকেট যথেষ্ট রোদ পেয়েছে। দুই দলের প্রথম ম্যাচের মতো উইকেট নরম নয়। উইকেটে আর্দ্রতাও নেই। অনুমিতভাবে ব্যাটিং নিয়েছেন মাশরাফি। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ম্যাচে নিয়েছিলেন বোলিং।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নিজেদের আগের ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিং নিয়ে তিনশ ছাড়ানো স্কোর গড়েছিল স্বাগতিকরা।

আত্মতুষ্টিতে ভুগছে না বাংলাদেশ

সবার আগে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল নিশ্চিত করা বাংলাদেশের জন্য শেষ দুই ম্যাচ নিয়ম রক্ষার। তামিম ইকবাল জানিয়েছেন, তাতে তাদের খেলায় কোনো পার্থক্য আসবে না। নিজেদের সর্বোচ্চটা দিয়েই শেষ দুই ম্যাচে খেলবে বাংলাদেশ।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে জিম্বাবুয়ের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। খেলা শুরু হবে বেলা ১২টায়।

জিম্বাবুয়ের কাছে ২০১০ সালের ডিসেম্বরে শেষ দেশের মাটিতে হেরেছিল বাংলাদেশ। তামিম জানান, জয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রাখার দিকে থাকবে তাদের মনোযোগ।

ফাইনালে চোখ জিম্বাবুয়ের

শ্রীলঙ্কার কাছে আগের ম্যাচে হারলেও দমে যায়নি জিম্বাবুয়ে। কমে যায়নি আত্মবিশ্বাস। দলের উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান পিটার মুর বলছেন, ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টের ফাইনালে চোখ রাখছে দল।

ফাইনালে ওঠার সম্ভাবনায় নিজেদের এগিয়ে রাখতে মঙ্গলবার বাংলাদেশের বিপক্ষে জয়টা খুবই জরুরি জিম্বাবুয়ের জন্য। কাঙ্ক্ষিত সেই জয়টি পেতে আত্মবিশ্বাসী জিম্বাবুয়ে, জানান মুর।

২ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে বাংলাদেশ। ৩ ম্যাচে জিম্বাবুয়ে ও শ্রীলঙ্কার পয়েন্ট ৪ করে। রান রেটে খানিকটা এগিয়ে গ্রায়েম ক্রিমারের দল।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ