করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসার আহ্বান সিলেট জমিয়তের

প্রকাশিত: ২:১০ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ৫, ২০২১

করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসার আহ্বান সিলেট জমিয়তের

করোনা মহামারী প্রকটভাবে দেখা দেয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সাহায্যে বিত্তশালীদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ, সিলেট জেলা ও মহানগর নেতৃবৃন্দ।

 

বুধবার (৪ আগস্ট) সিলেট জেলা জমিয়তের দপ্তর সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সিলেট জেলা সভাপতি মাওলানা মুশাহিদ আলী, মহানগর সভাপতি মাওলানা খলিলুর রহমান, জেলা সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল মালিক কাসেমী, মহানগর সাধারণ সম্পাদক মাওলান নজরুল ইসলাম নেতৃবৃন্দ বলেন, আমরা বৈশ্বিক এক মহাসঙ্কটের মুখোমুখি অবস্থান করছি। করোনার দ্বিতীয় ধাপ বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও প্রকটভাবে দেখা দেয়ায় দেশের স্বাভাবিক জীবনযাত্রার গতি মহাবিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়ে পড়েছে। যথাসময়ে সঠিক এবং কার্যকরী পদক্ষেপ না নেয়ায় করোনায় ক্ষতিগ্রস্তের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাও বেড়ে চলছে। লম্বা সময় পাওয়ার পরও চিকিৎসার জন্য সঠিক এবং কার্যকরী পরিকল্পনা গ্রহণে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। লকডাউন, শটডাউন ঘোষণায় লাখ মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। ফলে মানুষের মাঝে এক ধরনের ভয়, আতঙ্ক ও হতাশা কাজ করছে।

 

 

নেতৃত্বদ্বয় আরো বলেন, কর্মহীন অসহায় মানুষ খাদ্যের অনিশ্চয়তায় ভুগছে। শুধু নিম্নআয়ের লোকেরাই লকডাউনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এমন নয়, উচ্চ মধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্তের লোকেরাও দিশাহারা হয়ে পড়েছে। নিম্নআয়ের মানুষ, দিনমজুর, দিনে আনে দিনে খাওয়া মানুষজন সীমাহীন বিপাকে পড়েছে। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, পরিবহন শ্রমিক, নির্মাণ শ্রমিক, রিকশাচালক জীবন বাঁচানোর জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্যের জন্য হাহাকার করছে। কাজ নেই, খাবার নেই, চিকিৎসা ব্যয়ের সামর্থ্য নেই। করোনা চিকিৎসা ব্যয়বহুল হওয়ার ফলে আক্রান্ত রোগীদের নিয়ে পরিবার-পরিজনেরা সীমাহীন বিপাকে পড়েছে। অর্থসংকটে পড়ে বহু লোক বাসা ভাড়া দিতে অপারগ হওয়ায় পরিবার-পরিজন নিয়ে গ্রামে চলে যেতে বাধ্য হচ্ছে। সেখানেও তাদের খাদ্য সংকটে দিন কাটাতে হচ্ছে। এক বছরের অধিক সময় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। তাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে কওমী মাদ্রারাসা সহ সকল প্রতিষ্ঠান খোলে দেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানান।

 

 

জমিয়ত নেতৃবৃন্দ বলেন, করোনার প্রথমদিকে অসহায় মানুষের পাশে বিভিন্ন জনকে সাহায্য সহযোগিতা করতে যেভাবে দেখা গিয়েছে, দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় সে প্রবণতা হ্রাস পেয়েছে। তাই জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ, সিলেট জেলা ও মহানগর শাখার নেতৃবৃন্দ দেশের বিত্তশালীদের করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সহায়তায় পূর্বের ন্যায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। বিজ্ঞপ্তি

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সর্বশেষ